মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০২:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
জাবি শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা, আহত অর্ধশত শিক্ষার্থীদের রক্ত ঝরানোর বীরত্বে আওয়ামী শাসকগোষ্ঠী এখন আত্মহারা : মির্জা ফখরুল ঢাবির জরুরি বৈঠকে প্রভোস্ট কমিটির পাঁচ সিদ্ধান্ত হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান, ‘দালাল-দালাল’ স্লোগান মিছিলের ডাক কোটাবিরোধীদের, আহতদের জন্য চাইলেন সহায়তা বিয়েতে কোনো কমতি থাকলে ক্ষমা করে দেবেন: মুকেশ আম্বানি আত্মস্বীকৃত রাজাকারদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে ছাত্রলীগ: ওবায়দুল কাদের রায়গঞ্জে আসামিকে ধরতে নদীতে ঝাঁপ, পুলিশ কর্মকর্তার মৃত্যু ৩৪ বছর আগে ফিরতে পারলে কোটা আন্দোলনে অংশ নিতাম : রিজভী আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে শক্ত হাতে দমন : ডিএমপি কমিশনার

‘ডাকা’র দুর্দশায় চার লাখ মানুষ

এনবিডি নিউজ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৮ জুন, ২০২৩
  • ৩৭ বার

সংখ্যাটি চার লাখ। তারা যুক্তরাষ্ট্রে তাদের মা-বাবাদের সাথেই থাকতে পারত। তরুণ অভিবাসীরা আরো ভালো বেতনে চাকরির সুযোগ, শিক্ষার সুযোগ এবং বহিষ্কার থেকে সুরক্ষা পেতে পারত। কিন্তু ১১ বছর ধরে ডাকা (ডেফার্ড অ্যাকশন ফর চাইল্ডহুড অ্যারাইভাল) কর্মসূচির ভাগ্যের সাথে তাদের ভাগ্যও হতাশার গহ্বরে ঝুলছে।

ট্রাম্প প্রশাসনের আইনগত চ্যালেঞ্জ এবং রিপাবলিকান-নেতৃত্বাধীন রাজ্যগুলো ডাকার অবসান চাওয়ায় এসব শিশু ও তরুণ মারাত্মক দুর্দশায় থাকতে বাধ্য হচ্ছে।

২০২১ সালে টেক্সাসের এক ফেডারেল বিচারক বর্তমান প্রাপকদের জন্য ডাকার সুযোগ দিলেও নতুন আবেদনকারীদের জন্য তা বন্ধ করে দেন।

এর পর থেকে প্রথমবারের মতো আবেদন করার যোগ্য হলেও চার লাখ লোক তা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অভিবাসী সংস্কারে সমর্থনকারী এফডব্লিউডি.ইউএস নামের একটি গ্রুপ এ তথ্য জানিয়েছে।

বর্তমানে পাঁচ লাখ ৮০ হাজার প্রাপক প্রতি দুই বছর পর পর তারে ডাকা মর্যাদা নবায়ন করার সুযোগ পেয়ে থাকে।

ইউনাইটেড উই ড্রিম-এর ন্যাশনাল কমিউনিকেশন্স ম্যানেজার ক্যাথরিন লি বলেন, ডাকার কারণে কেবল যারা আটকে আছে তারাই নয়, বরং যারা সুবিধা পাচ্ছে, তারাও সমস্যায় আছে।

ওবামা আমলের ওই কর্মসূচিতে আইনগত মর্যাদা না থাকা শিশু হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে আসা অভিবাসীদের বহিষ্কারের শঙ্কা ছাড়াই কাজ করা ও পড়াশোনা করার সুযোগ পেত।

ডাকার গ্যাঁড়াকলে পড়া বেশির ভাগের বয়স এখন কিশোর বয়সের শেষ প্রান্তে কিংবা ২০-এর কোঠার প্রথম দিকে। তাদের এখন নিজস্ব জীবন শুরু করার কথা।

ক্যাথরিন লি বলেন, এসব তরুণ-তরুণীদের অনেকে হাই স্কুল থেকে গ্রাজুয়েশন করেছে, তাদের অনেকে এমনকি কমিউনিটি কলেজ থেকে গ্রাজুয়েশন করছে বা ব্যাচেলর্স ডিগ্রি পাচ্ছে। অথচ তারা এরপর কী করবে, তা নিয়ে অনিশ্চয়তায় ভুগছে। কারণ তাদের কোনো ওয়ার্ক পারমিট নেই।

তিনি বলেন, তারা সবসময় হুমকির মুখে থাকছে। তারা এই দেশে কোনো ধরনের সুরক্ষা পাচ্ছে না।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2019 bangladeshdailyonline.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com